প্রান্তিক নারী। রাজা সহিদুল আসলাম-এর আলোকচিত্র

0
748

প্রান্তিক নারী

রাজা সহিদুল আসলাম

কাজী নজরুল ইসলাম বলেছেন – গাহি সাম্যের গান, মানুষের চেয়ে বড় কিছু নাই, নহে কিছু মহিয়ান। ভূপেন হাজারিকার সেই গান – আমায় একটা সাদা মানুষ দাও যার রক্ত সাদা, আমায় একটা কালো মানুষ দাও যার রক্ত কালো। সবখানে আমরা শুনি – সব মানুষ সমান। আসলেই কি সমান? পৃথিবীতে অনেক ইতিহাস লেখা হয়েছে, সেখানে লিখিত হয়েছে কি সাধারণ মানুষের কথা? অনেক মিউজিয়াম দেখি সেখানে কি সাধারণ মানুষের চিহ্ন থাকে? রাজা বাদশা থেকে শুরু করে সব বড় বড় লোকের ঠাঁই। সাধারণের ভেতর রয়েছে আর এক সাধারণ, যাকে বলা হচ্ছে সাবঅলটার্ন। প্রান্তিক মানুষ। প্রান্তিকতার আবার রকমফের রয়েছে। আন্তর্জাতিকভাবে যেমন প্রথম বিশ্ব, দ্বিতীয় বিশ্ব, তৃতীয় বিশ্ব। দেশের ভেতর রাজধানী থেকে শেষ যে জেলাটি সেটি প্রান্তিক জেলা। অর্থনৈতিকভাবে, পেশার দিক থেকে, সামাজিক অবস্থানের দিক থেকে, ভাষাগত, সাংস্কৃতিক এমন কি গৃহকোণ – সব ক্ষেত্রেই প্রান্তিকতা বিরাজমান। পরিবারে নারীরা প্রান্তিক মানুষ। যদি প্রতিবন্ধী কেউ থাকে তাহলে সে প্রান্তিক।
প্রান্তিক মানুষরা ইতিহাসের অংশ হয়না কখনও। তারা শুধু সেবা দিয়ে যায়। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ১৯৩০ সালে ভাই রথীন্দ্রনাথকে এক চিঠিতে লিখেছেন – ‘চিরকালই মানুষের সভ্যতায় একদল অখ্যাত লোক থাকে, তাদের সংখ্যা বেশি, তারাই বাহন; তাদের মানুষ হবার সময় নেই; দেশের সম্পদের উচ্ছিষ্টে তারা পালিত। সবচেয়ে কম খেয়ে, কম পরে, কম শিখে বাকি সকলের পরিচর্যা করে; সকলের চেয়ে বেশি তাদের পরিশ্রম সকলের চেয়ে বেশি তাদের অসম্মান। কথায় কথায় তারা উপোস করে মরে। উপরওয়ালাদের লাথি ঝাঁটা খেয়ে মরে – জীবনযাত্রার জন্য যত কিছু সুযোগ সুবিধে সবকিছুর থেকেই তারা বঞ্চিত।’
প্রভূত্ব ও অধীনতা, শাসন ও শোষণ ভিন্ন ভিন্ন রূপে বিস্তৃত আজ বিশ্বজুড়ে। প্রান্তিকজনের নারী-পুরুষের যে ব্যাপক সমষ্টি এরমধ্যে নারীর অবস্থা আরও নিম্নে।
নারীদের নিয়ে অনেক কাজ হচ্ছে। নারীর সমঅধিকার, জেন্ডার বৈষম্য, নারীর ক্ষমতায়ন বেশ জোরদার বাংলাদেশে।
এখানে আমি এসব বিষয়ে আলোচনা করতে চাই না। আমার লক্ষ প্রান্তিক নারী। এবং সেটা ক্যামেরার ভাষায় বলতে চাই। প্রান্তিক নারীদের ছবি তোলার কাজ করছি বেশ কয়েক বছর ধরে। তার অল্পকিছু ছবি এখানে তুলে ধরছি –

—///—

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here