কাজী নজরুল ইসলামের কবিতা ও যৌবনের মহিমা। রাজা সহিদুল আসলাম

0
458

নজরুল। কাজী নাজরুল ইসলাম। তাঁর কবিতার একটি লাইন

কাজী নজরুল ইসলামের কবিতা ও যৌবনের মহিমা

রাজা সহিদুল আসলাম

কাজী নজরুল ইসলামের কবিতা, গান, গল্প, বক্তৃতা, অভিনয় বৈচিত্র্যময় এবং অর্থবহতায় গভীর। তাঁকে নিয়ে অনেক লেখালেখি হয়েছে এবং হচ্ছে। কিন্তু আমার বর্তমান প্রসঙ্গ তাঁর কবিতার একটি লাইন – ‘এই যৌবন জলতরঙ্গ কী দিয়া রুধিবি বালির বাধ’। কবি এখানে যৌবনের মহিমা গেয়েছেন। তাঁর অনেক কবিতা ও অন্যান্য বিষয়ে তেজদীপ্ততা ও তারুণ্য প্রকাশ পেয়েছে কিন্তু এই লাইনটি যেন সাগরের মত বিশাল এবং গভীর। যৌবনের উদ্দামতা সাগরের তরঙ্গের চেয়েও তেজদীপ্ত, যার তুলনা করা যায় সুনামির সঙ্গে। যৌবনের সামগ্রিক ব্যাখ্যা তিনি অকপটে একটি লাইনে ব্যক্ত করে দিয়েছেন। যৌবনের কাছে পাহাড় সমান প্রতিকূলতা বালির বাঁধের মত। এই সময়েই রচিত করা সম্ভব জীবনের শ্রেষ্ঠ কাজটি। পৃথিবীতে যাঁদের আমরা সফল বলে মনে করি তাঁদের জীবনের দিকে তাকালে এই প্রমাণ পাব। কাজী নজরুল ইসলামের এই বাক্য উন্নত দেশ, অনুন্নত দেশ, উন্নয়নশীল দেশ – সকল ভূখণ্ডের নাগরিকের জন্য প্রযোজ্য। আমাদের দেশে অর্থাৎ বাংলাদেশে বেকার সমস্যা রয়েছে। এই বেকারত্ব চাকরির মাধ্যমে দূর করা সম্ভব নয়। এই ক্ষেত্রে নজরুলের এই লাইনটিকে যদি যুব সম্প্রদায় প্রাণে ধারণ করতে পারে তাহলে তার কর্মসংস্থানের সমস্যা হবার কথা নয়। নিজস্ব সম্পদ যদি সামান্যও হয় তাতে কিছু যায় আসেনা। অদম্য ইচ্ছাশক্তির বিবিধ পরিকল্পনার তার কার্য সম্পাদন করা সম্ভব। কাজ শুরু করলেই সে এগিয়ে যাবে। কারণ এই সময়টা একটা স্বর্ণালী সময়। কোথাও আটকাবার সময় নয়। উতরে যাবার চিরন্তনী এক সময়। যৌবনে শুধু ইচ্ছাশক্তি যুক্ত করা দরকার।

গ্রীক পুরাণে রয়েছে – সমাজে কোনো দুর্বল যুবক থাকবেনা। যদি কোনো যুবক দুর্বল হতো, তাহলে তাকে পাহাড়ের পাদদেশে ফেলে রেখে আসা হতো। হিংস্র পশুরদল তাকে কামড়ে ছিঁঢ়ে খেয়ে ফেলতো।… এটি কোন হিংস্রতার গল্প নয়। এখানে বোঝানোর চেষ্টা করা হয়েছে, যুবকরা হবে শক্তিশালী, সাহসী, উদ্দাম, কর্মময়। তারাই বয়ে আনবে নতুন দিনের নতুন বার্তা।

কাজী নজরুল ইসলামের এই লাইন ভেতরে লুকিয়ে রেখেছে অনেক গুরুত্বপূর্ণ বাস্তব ব্যাখ্যা। কোন শব্দ বা কোন লাইন যখন প্রকাশ করতে পারে বহু ব্যাখ্যা, পাঠকের মনে স্থান করে নিতে পারে তখন তা শিল্প হয়ে ওঠে।

০৮ এপ্রিল ২০১৭ খ্রি:

 

 

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here